Cookie Policy          New Registration / Members Sign In
PrabashiPost.Com PrabashiPost.Com

ভোটের আয়না

নির্বাচনের মরশুমে গণতন্ত্রের পীঠস্থান গ্রিসের আর্শিতে ভারতের ভোট দেখলেন এই প্রবাসী ভারতীয় ।

Dr. Panchajanya Ghatak
Mon, May 12 2014

Temple of godess Athena. Photo: Dr. Ghatak

About Dr. Panchajanya

A forensic psychiatrist by profession, Panchajanya is a person with interests in music, rock concerts, cooking and of course single malt whisky. He takes breather from a demanding job to make way for his many interests.


More in Views

An Enigmatic Beauty

লিস্টিকেল

বরিশালের বাঙাল

My many Kolkata

 
বিলেতবাসী হওয়ার আগে ভাবতাম ব্রিটেনের প্রায় সবাই বোধহয় কলকাতাকে এক ডাকে চিনবেন । আঠারো বছরে সেই ভুল ভেঙেছে । কলকাতাকে অনেকভাবে বর্ণনা করতে হয়েছে । যে ভূগোল খানিকটা জানে, মনে আছে তাকে বলেছি “a very big city in Eastern India” । ইতিহাসে যার একটু বেশি উৎসাহ – ১৯৪৭, দেশভাগ এসব জানে, তাকে বলেছি – “Kolkata was the second city of the Empire” ।

ঠিক কবে ? এড়িয়ে গেছি সযত্নে ।

যারা ইতিহাস-ভূগোলে উদাসীন – তাদের বুঝিয়েছি মাদার টেরেসার শহর । কারোরই বুঝতে বেশি সময় লাগে না ।

এথেন্স ছাড়িয়ে যখন আমাদের ট্যাক্সিচালক জিজ্ঞাসা করল ব্রিটেনের আগে আমরা কোথায় থাকতাম ? বললাম ইন্ডিয়া । ভেবেছিলাম প্রশ্ন ওখানেই থেমে যাবে । কিন্তু প্যানাজতিস একটু ভেবে ইংরেজিতে জিজ্ঞাসা করল – ইন্ডিয়ার কোথায় ? দায়সারা ভাবে বললাম কলকাতা ।

যখন ভাবছি এবার কিভাবে প্যানাজতিসকে বোঝাই কলকাতাটা ঠিক কোথায় তখনই সে বলে উঠল – ‘আমি কলকাতায় গেছি । অনেকবার । ‘ গ্রিসের রুক্ষ পাহাড়ি রাস্তায় পেস্তা বাদামের গাছ দেখছিলাম অবাক হয়ে । আচমকা প্যানাজতিসের কথা শুনে নড়েচড়ে বসলাম । জানতে চাইলাম, ‘কবে? কিভাবে?’

প্যানাজতিস বলল ও পুরনো জাহাজি। অনেকবার কলকাতা, মারগাঁও গেছে । কলকাতাই ওর বেশি পচ্ছন্দ। মনে হল না খদ্দেরের মন রাখার জন্য বলছে ।

ষাট পেরনো বলিষ্ঠ চেহারায় ভাঙ্গনের ছাপ । কিন্তু মুখে একটা দৃঢ় ভাব । মনে হল এই মানুষটা কথা কম বলে, কিন্তু বললে ঠিক কথাই বলবে ।

স্মৃতি হাতড়ে প্যানাজতিস বললো জাহাজ খিদিরপুরে ভিড়লে ওরা কয়েকজন মিলে চৌরঙ্গি, পার্ক সার্কাস বেড়াতে যেত । মশলাদার ঝাল খাবারের নেশাটা ধরেছিল ওখান থেকেই ।

সময়টা ৮০র দশকের মাঝামাঝি বলেই মনে হল । পার্ক সার্কাস অঞ্চলে তখন দাপিয়ে ব্যবসা করছে সিরাজ-লখনউ, হোটেল-মিলন । সুরাপ্রেমীদের জন্য উইন্ডসর বা রেখা বার । আরসেলানের আগ্রাসী যাত্রা তখনও শুরু হয়নি ।

কলকাতায় মিছিল আর ধর্মঘটের কথা বেশ মনে আছে প্যানাজতিসের । এখন এথেন্সের রাস্তায় ধর্মঘট আর মিছিল দেখে দেখে গা সওয়া হয়ে গেছে ।

বিরক্ত লাগে না এত মিছিল-টিছিল?

প্যানাজতিস বললেন, “কী করবে মানুষ ? প্রতিবাদ তো করতেই হবে । মানুষ ভোট দিয়ে সরকার গড়ল আর তারাই উঠেপড়ে লেগেছে মানুষের সর্বনাশ করতে । সুযোগ সুবিধা একের পর এক কমে যাচ্ছে । ভেবেছিলাম পেনশন আর জমানো কিছু টাকা দিয়ে চলে যাবে । কিন্তু আবার কাজে নামতে হল ।” প্যানাজতিসের মেয়ে প্রত্নতাত্ত্বিক । এথেন্স থেকে বেশ খানিকটা দূরে কাজ করে । আর প্যানাজতিস থাকে এথেন্সের আটিকা এলাকার স্পাটা শহরে । ইতিহাসে খুব উৎসাহ ওর । খুব বেশি দূর পড়াশুনা করতে পারেনি, কিন্তু মেয়ের ভেতর দিয়ে সেই ইচ্ছে পূরণ হয়েছে ।

এথেন্স আর তার চারপাশের এলাকা আটিকায় শুরু হয়েছিল গণতন্ত্রের প্রথম অগ্রযাত্রা । খৃষ্ট পূর্ব ৫০০-র কাছাকাছি হবে । কেমন ছিল সেই প্রথম গণতন্ত্রের পরীক্ষা-নিরীক্ষা ? আজ থেকে প্রায় ২৫০০ বছর আগে ?

 প্যানাজতিসের সঙ্গে লেখক

জানলাম এথেনিয়রা চালু করেছিল ‘direct democracy’ । তাঁরা ভোট দিয়ে প্রতিনিধি নির্বাচন করতেন না । বরং আরো কিছুটা এগিয়ে আইন বা বিভিন্ন বিল সরাসরি নির্বাচন করতেন । ভোটাধিকার অবশ্য খুব বেশি লোকের ছিল না । তিন লাখের মধ্যে হাজার ৫০ মানুষ ভোট দিতে পারতেন । প্রায় ১৭ শতাংশ হবে ।

ভোটারদের প্রভাবিত করতে রাজনৈতিক নাটক-প্রহসন চালু ছিল সেযুগেও । সোলোন, ক্লাইস্থেনিস-এর মতো তাত্ত্বিকদের চিন্তা-ভাবনাই এগিয়ে নিয়ে গিয়েছিল গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে । পেরিক্লিস সেই সময়কার গণতান্ত্রিক গ্রিসের এক উজ্জ্বল নাম । তাঁর আমলে তৈরি পারথেনন-আক্রোপলিস এখনো গ্রিসের প্রতীক ।

লাখ লাখ মানুষ প্রতি বছর গ্রিসে ছুটে আসেন এই স্থাপত্য দেখতে । তাঁদের সূত্রে গ্রিসের হাঁপিয়ে ওঠা অর্থনীতি কিছুটা অক্সিজেন পাচ্ছে । পেরিক্লিসের-এর দূরদর্শিতা এখনো তাঁর দেশকে সাহায্য করে চলেছে । গণতান্ত্রিক নেতার এমন সুদূরপ্রসারী প্রভাবের দৃষ্টান্ত ইতিহাসে হয়ত খুব বেশি পাওয়া যাবে না ।

সেই গণতন্ত্র ধংস করেছিল আলেকজান্ডার দ্য গ্রেট । অথচ পেরিক্লিস-এর চেয়ে মানুষ আলেকজান্ডারকে অনেক বেশি মনে রেখেছে ।

গণতন্ত্রের ইতিহাস নিয়ে আড্ডা বেশ জমে উঠেছিল । আমরা চলেছি ডেলফির পথে । প্রায় ১১০ মাইল ফাঁকা রাস্তা । এন্তার গল্পের অবকাশ । বললাম – ওরকম সময়ে শুনেছি ভারতের কপিলাবস্তুতেও গণতন্ত্র চালু ছিল । কপিলাবস্তু বুদ্ধের জন্মস্থান ।

তবে কেমন ছিল সেই গণতন্ত্র – আমার ঠিক জানা নেই ।

প্যানাজতিস বললেন, “ হ্যাঁ, হ্যাঁ ! ইন্ডিয়াতে তো এখন ভোট চলছে । খুব হই হই। বিবিসি আর ফরাসী টিভি খুব দেখায় । ইন্ডিয়ার ছবি দেখতে খুব ভাল লাগে । যদি পুরনো চেনা কোনো জায়গা চোখে পরে যায় !”

প্যানাজতিস নরেন্দ্র মোদি-রাহুল গান্ধীর লড়াইয়ের খবরও ভালোই রাখে । অরবিন্দ কেজরিয়ালকেও ওর বেশ লাগে । তবে এই দুই বিরাট নামের মধ্যে তিনি কি খুব একটা সুবিধে করে উঠতে পারবেন ?

ও ভারতে যায়নি প্রায় ২০ বছর । শুনেছে ইন্ডিয়া নাকি অনেক এগিয়ে গেছে । “এই এগিয়ে যাওয়া যেন চলতে থাকে।”

এবার আলোচনা একটু অন্য দিকে মোড় নিলো । গণতন্ত্রে মানুষের কতটুকু মতপ্রকাশ হয় ?

ব্রিটেনে কন্সারভেটিভদের বিরুদ্ধে লড়াই করলো লিবারেল ডেমোক্র্যাট-রা । অথচ ভোটের পর তারা মিলে মিশে সরকার চালাচ্ছে । যারা কন্সারভেটিভদের বিরুদ্ধে ভোট দেবে বলে লিবারেল ডেমোক্র্যাট-দের বেছে নিয়েছিল । তাদের মত প্রকাশের কতটুকু বজায় ছিল?

মনে হল ভারতেও এরকম হয়েছে বহুবার । হাঁস আর শজারুর লড়াইতে মানুষ ভোট দিয়েছে হাঁস বা শজারুকে – সরকার গড়েছে হাঁসজারু । তবে এথেন্সের সেই ‘direct democracy’-র পরীক্ষা-নিরীক্ষা কি কালের নিরিখে অনেক এগিয়ে ছিল ?

এথেন্সে মানুষ ভোট দিতেন রঙিন পাথরের বল দিয়ে । ব্যালটের আদিপুরুষ । ভারতে এখন ইলেক্ট্রনিক যন্ত্রে বোতাম টিপে ভোট হয় । যদিও ব্রিটেনে এখনো পেন্সিল দিয়ে ব্যালটে আঁচড় দিয়েই ভোট দিতে হয় । আঙুলে কালির ছাপ পড়ে না ।

ভারতে কি এখনো গণতন্ত্রপন্থীদের প্রতি অতটা ভরসা তৈরী হয়নি ? কে এগিয়ে, কে পিছিয়ে – তার হিসেব সময় করবে ।

পাহাড়ের ওপর ডেলফির মন্দির দেখা যাচ্ছে । বুঝলাম এখনো অনেকটা চড়াই ভাঙতে হবে ।

Please Sign in or Create a free account to join the discussion

bullet Comments:

 
Kajari Guha (Thursday, May 15 2014):
A very important question you have raised.Let's see.
 

 

  Popular this month

 

  More from Dr. Panchajanya


PrabashiPost Classifieds



advertisement


advertisement


advertisement