Cookie Policy          New Registration / Members Sign In
PrabashiPost.Com PrabashiPost.Com

ফুটবল ধর্ম

জার্মানদের কাছে ফুটবল শুধুমাত্র খেলা নয়, দেশপ্রেমের বহিঃপ্রকাশ, লিখছেন জার্মান বাড়ির বাঙালি বউ ।

সুস্মিতা ধর লুকাস
Tue, Jul 8 2014

World Cup Fever in Germany (Photo: Susmita Dhar)

About সুস্মিতা ধর

বিবাহসূত্রে জার্মানির বাসিন্দা সুস্মিতা প্রতিদিনই কলকাতাকে মিস্‌ করেন । নিজের জার্মান বর ছাড়াও ভালোবাসেন ছবি তুলতে, আঁকতে আর বেড়াতে ।


More in Sports

World Cup 2014: A Case of Wisdom Tooth

An Indian in Football’s Heaven

বিশ্বকাপের ছায়ায়

বিদায় শচীন

 
ছোটোবেলা থেকে আমি ডানপিটে হিসেবে পরিচিত হলেও খেলাধুলো নিয়ে কোনোদিনই আমার তেমন উৎসাহ ছিলো না । স্কুলবাসে করে দলবেঁধে ফেরার সময় বন্ধুরা যখন লোথার ম্যাথায়াউস বা দিয়েগো মারাদোনা নিয়ে গলা ফাটাচ্ছে আমি তখন জানালার পাশে বসে একমনে গল্পের বই পড়ে চলেছি ।

বাড়িতে বিশ্বকাপের সময় প্রায়ই রাত জেগে আলোচনা হত । উত্তেজিত সবার মধ্যেই নিজের দল নিয়ে একটা মরিয়া ভাব । আমি তখন গভীর ঘুমের দেশে পাড়ি দিয়েছি । এমনকি কাগজে খেলার পাতাটা পর্যন্ত উল্টে দেখেছি বলে মনে পড়ে না। অথচ সেই আমিই জার্মানির হয়ে গলা ফাটাচ্ছি । জার্মানির খেলা থাকলে আমার হাতের আঙ্গুলের একটা নখও আর আস্ত থাকে না ।

বিয়ের পরে জার্মানিতে আসার পর থেকেই সব কেমন যেনো বদলে গেলো । জার্মান শ্বশুরবাড়ি, জার্মান পাড়া, জার্মান ভাষা এবং সংস্কৃতি - আস্তে আস্তে সব কেমন যেন আপন হয়ে গেলো । আর এর সাথে যুক্ত হলো তীব্র ফুটবল প্রেম ।

আমার জার্মান শ্বশুরবাড়ির লোকেদের আর আমাদের জার্মান বন্ধুদের ফুটবল নিয়ে যে উন্মাদনা, কখন যেনো তা আমার মধ্যেও সঞ্চারিত হলো । ফুটবলকে কেন্দ্র করে টানটান উত্তেজনা, তার নেশা সব আমার মধ্যেও ছড়িয়ে পড়লো ।

জার্মানিতে আসার পরে সবার আগে চোখে পড়লো যে খেলাটা এদের কাছে শুধু খেলা নয়। এটা জার্মানদের দেশপ্রেমের একধরণের বহিঃপ্রকাশও বটে । আমি জার্মানিতে আসি ২০০৭ সালে । তার ঠিক আগের বছর বিশ্বকাপ জেতে প্রতিবেশী ইতালি ।

আমার বর দেখলাম এতটাই ক্ষেপে আছে ইতালির ওপর যে ওখানে বেড়াতে যাওয়ার প্রস্তাবও এক কথায় নাকচ করে দিলো। ওর কাছে তখন ইতালির সবই খারাপ । এমনকি পিৎজাও খাওয়া বন্ধ ছিলো আমাদের বাড়িতে । তাহলেই বুঝতে পারছেন ফুটবল এদের কাছে কী!

জার্মানিতে আসার পরে আমাকে যা সবচেয়ে অবাক করেছে তা হলো বিশ্বকাপের সময় সবার বাড়িতে জাতীয় পতাকা টাঙ্গানো । জার্মানরা যে দেশের জন্য কতটা গর্বিত তা এই আচরণের মধ্যে দিয়ে বোঝা যায় । শুধু তাই নয় ফলাফল যাই হোক না কেনো জার্মানরা সবসময় খেলোয়াড়দের পাশেই আছেন ।

যেদিন জার্মান দলের খেলা থাকে সেদিন রাস্তায় একজন লোককেও দেখা যায় না । কিছুদিন আগে আমার ছেলের স্পোর্টস্‌ স্কুলে একটা মিটিং ছিলো কিন্তু জার্মানি বনাম মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র খেলা থাকায় তা বাতিল করে দেওয়া হয় । ফুটবল নিয়ে বাচ্চাদের উৎসাহও কম নয় । জার্মানির খেলার দিন তারা সবাই জাতীয় দলের জার্সি পরে স্কুলে যায় ।

কোনো কারণে জার্মানি হারলে এরা তাকে নিজেদের পরাজয় বলেই ধরে নেয় কিন্তু তার মানে এই নয় যে সব রাগ খেলোয়াড়দের ওপর গিয়ে পড়বে । বরং এরা দলের খেলোয়াড়দের লড়াইকে সম্মান দিতে জানে ।

জার্মানি জিতলে আপনাকে টেলিভিশন দেখে সে খবর জানতে হবে না । আপনি চুপ করে ঘরে বসে থাকলেও তা বুঝতে পারবেন । জার্মানি জিতলে রাস্তায় গাড়ির হর্ন বাজতে থাকে । যে দেশে হর্ন বাজানো বিরল ঘটনা সেখানে এটাই আনন্দ প্রকাশের মাধ্যম ।

এখানে একা একা ঘরে বসে ম্যাচ দেখার চল নেই । বরং নদীর ধারে, স্টেডিয়ামে বড় পর্দা টাঙিয়ে একসাথে খেলা দেখাটাই এখানে দস্তুর । এই অভিজ্ঞতা যে কতটা আনন্দদায়ক তা বাঙালিরা নিশ্চয় উপলবদ্ধি করতে পারবেন ।

আর তার সাথে উৎসবমুখর পরিবেশ । চারপাশে জার্মান পতাকার ছড়াছড়ি । হৈ হৈ, চিৎকার, হাসি । খেলার সাথে সাথে দর্শকদের মুখের অভিব্যক্তির পরিবর্তনও একটা দেখার বিষয় । এছাড়া বিয়ারের গলা ভেজানো তো আছেই ।

এসব দেখে আমার কলকাতার কথাই মনে পড়ে যায় । ইতিহাস, ভূগোল সবই আলাদা । তাছাড়া জার্মানি আর কলকাতার মধ্যে হাজার হাজার মাইলের দূরত্ব, কিন্তু ফুটবল দেখার সময় কলকাতা আর জার্মানি যেন মিলেমিশে একাকার ।

Please Sign in or Create a free account to join the discussion

bullet Comments:

 
Nirmalya Nag (Friday, Jul 11 2014):
German-ra football ki bhabe upabhog kore tar ekta poriskar chhabi pelam. Dhanyabad. Brazil ar Argentina-r pore Bangali ra bodhhoy kebol Germany-kei samarthan kore.
 

 

  Popular this month

 

  More from সুস্মিতা ধর

 

PrabashiPost Classifieds



advertisement


advertisement


advertisement